বন অধিদপ্তর গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

রক্ষীত এলাকা সমূহে কার্বন জরিপ

 

 

২০১০-১১ ইং সনে IPAC প্রকল্পের আওতায় ৬টি রক্ষিত এলাকার (Protected Area) কার্বনের পরিমান জরিপ করা হয়। রক্ষিত এলাকা সমূহঃ

 

১) দুধপুকুরিয়া-ধোপাছড়ি বন্যপ্রানী অভয়ারণ্য,

২) ফাসিয়াখালি বন্যপ্রানী অভয়ারণ্য,

৩) টেকনাফ বন্যাপ্রনী অভয়ারণ্য,

৪) মেধাকচ্ছপিয়া জাতীয় উদ্যান,

৫) ইনানী জাতীয় উদ্যান (প্রস্তাবিত),

৬) সীতাকুন্ড সংরক্ষিত বন।

 

 

কার্বনের পরিমান নির্নয়ের ক্ষেত্রে বিভিন্ন স্তরে ৫টি কার্বন-পুল বিবেচনায় আনা হয়। এগুলো হলোঃ


১) ক. Trees above ground (ভূমির উপরের গাছসমূহে যেমনঃ পুরো গাছ)
খ. Trees below ground (ভূ-নিম্নস্থ গাছের অংশ সমূহ, যেমনঃ root system)
২) Seedling & Sapling (ছোট ও অপেক্ষাকৃত বড় চারাসমূহ)
৩) Non-tree vegetation
৪) Down wood (পতিত কাঠ) এবং
৫) Soil (০ থেকে ১০০ সেমি পর্যন্ত গভীরতার মাটির অংশ)

 

নীচের টেবিল এ রক্ষীত এলাকা সমূহে প্রাপ্ত কার্বন এর পরিমাণ উল্লেখ করা হলো:

 

রক্ষিত এলাকার নাম

জীবিত গাছ
(কার্বন
টন/হেঃ)

মৃত গাছ
(কার্বন
টন/হেঃ)

স্যাপলিং
(কার্বন
টন/হেঃ)

সিডলিং
(কার্বন
টন/হেঃ)

বাঁশ
(কার্বন
টন/হেঃ)

 

বেত
(কার্বন
টন/হেঃ)

পাতা
(কার্বন
টন/হেঃ)

মূল
(কার্বন
টন/হেঃ)

মোট কার্বন
(কার্বন
টন/হেঃ)

দুধপুকুরিয়া-ধোপাছড়ি
বন্যপ্রানী অভয়ারণ্য,

৬৫.৩০৬

০.৫৫৫

৫.২০৯

০.০২২

১৬.০৫

০.০৮১

১.২৫২

১৬.৯৮

১০৫.৪৬

ফাসিয়াখালি বন্যপ্রানী
অভয়ারণ্য

৭৪.৮৪৮

০.৫২৪

৫.৪১৮ 

০.৩৫৭

১.৭৭০

৬.২৩২

১.৫৫৪

১৯.৪৬

১১০.১৬

ইনানী জাতীয় উদ্যান

৭.০৯৩

 - 

৭.৮৭০

 ০.০০১

৮.৩৫০

০.০১৫

০.৮২২

১.৮৪

 ২৫.৯৯

মেধাকচ্ছপিয়া জাতীয়

উদ্যান

১২৬.৯৩

 ৫.৯৬

৯.৮৫

০.০১

১০.৩১

০.১২ 

১.৫৭

৩৩.০০

১৮৭.৭৫

সীতাকুন্ড সংরক্ষিত বন

২.০৬

 ০.১২

১৯.০৯

০.০০

০.০০

০.০০

০.৭০

০.৫৪

২২.৫১

টেকনাফ বন্যাপ্রনী
অভয়ারণ্য

৯.৫৬

 - 

৭.৯৬

০.০০৪

২০.৯০

 ০.২৪

১.৯৩

২.৪৯

৪৩.০৮

 

 

 

 

 

 

 

 

 


Share with :